বাড়িতে সহজে ফুলকপি চাষ

প্রকাশিত ১৮ মার্চ, ২০১৮ | আপডেট: ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

আসুন জেনে নেই বাড়ির চিলেকোঠা বা ছাদে অথবা ঘরের বারান্দায় অথবা বাড়ির আঙ্গিনায় বা উঠোনে কিভাবে ফুলকপি চাষ করতে হবে

ফুলকপি আমাদের দেশে একটি অতি পরিচিত সবজী। এটি মূলত শীতকালীন সবজি।  এটা দেখতে ফুলের মত। আমাদের দেশে মৌসুমে ব্যপকভাবে এই ফুলকপির চাষ হয়ে থাকে। আপনি ইচ্ছা করলে আপনার বাড়ির চিলেকোঠা বা ছাদে অথবা ঘরের বারান্দায় অথবা বাড়ির আঙ্গিনায় বা উঠোনে এই ফুলকপির চাষ করতে পারেন। আসুন জেনেনেই কিভাবে বাড়িতে এই ফুলকপির চাষ করবেন। 

কিভাবে ফুলকপি চাষে টব/মাটি তৈরি করবেন

ফুলকপি চাষের জন্য দোআঁশ অথবা বেলে দোআঁশ মাটি সবচাইতে উত্তম। এই ধরনের মাটিতে ফুলকপি চাষ করলে আপন ভাল ফলাফল পাবেন। এটি আমাদের দেশের আবহাওয়ার জন্য উত্তম।

ফুলকপি চাষে  কি ধরণের টব/পাত্রের আকৃতি বাছাই করবেন

বাড়িতে ফুলকপি চাষ করার জন্য আপনাকে উপযুক্ত পাত্র নির্বাচন করতে হবে। এক্ষেত্রে আপনি ছোট অথবা মাঝারি সাইজের টব অথবা হাফ ড্রাম নির্বাচন করতে পারেন। 

ফুলকপির  জাত বাছাই করা

আমাদের দেশে সাধারণত সংকর জাতের ফুলকপি চাষ হয়ে থাকে। এটি আমাদের দেশের আবহাওয়ার সাথে অত্যন্ত উপযোগি। এছাড়াও আরও অনেক ধরনের জাত আছে। যেমন মাঘী, অগ্রহায়ণী, পৌষালী, বারি ফুলকপি-১, ২ ইত্যাদি। 

ফুলকপি চাষ/রোপনের সঠিক সময়

আপনি বাড়িতে ফুলকপি চাষ করার জন্য উপযুক্ত সময় হল আগস্ট মাস থেকে সেপ্টেম্বর মাস। এ সময় চারা রোপন করলে ফুলকপির ভাল ফলন পাওয়া যায়।

কিভাবে ফুলকপির বীজ বপন ও সঠিক নিয়মে পানি সেচ দিবেন

ফুলকপির চাষ করার জন্য প্রথমে আপনাকে বীজ থেকে চারা তৈরি করতে হবে। এজন্য সুস্থ সবল বীজ এনে মাটিতে লাগাতে হবে। এবং বীজে নিয়মিত পানি দিতে হবে। কিছু দিন পর দেখা যাবে বীজ থেকে চারা অংকুর বের হবে।  

সঠিক নিয়মে ফুলকপি চাষাবাদ পদ্ধতি/কৌশল

মনে রাখবেন ঠাণ্ডা ও আর্দ্র জলবায়ুতে ফুলকপির ভাল ফলন পাওয়া যায়। বীজ থেকে চারা বের হলে সেখান থেকে সুস্থ সবল চারা তুলে নিয়ে উপযুক্ত পাত্রে লাগাতে হবে। এবং প্রতিটি পাত্রের একটি করে চারা লাগাতে হবে। এবং পাত্র গুলো একটি নির্দিষ্ট দূরত্বে স্থাপন করতে হবে। 

ফুলকপির চাষে সারের পরিমাণ ও সার প্রয়োগ

ফুলকপি চাষে আপনি বাড়িতে তৈরি জৈব সার দিতে পারেন। যেমন তরকারীর খোসা, ময়লা আবর্জনা, ইত্যাদি। এছাড়াও আপনি অজৈব সার হিসেবে পাত্রের মাটিতে গোবর, ইউরিয়া, টিএসপি, এমওপি দিতে পারেন।

ফুলকপির চাষে পোকামাকড় দমন ও বালাইনাশক/কীটনাশক কিভাবে প্রয়োগ করবেন

ফুলকপিতে বেশ কিছু ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়াজনিত রোগ দেখা যায়। এর মধ্যে ধসা রোগ, ক্লাব রুট, ডাউনি মিলডিউ, পাতা পচা রোগ উল্লেখযোগ্য। এক্ষেত্রে আপনি কিছুদিন পর পর গাছে কীটনাশক স্প্রে করে দিতে পারেন। 

কিভাবে ফুলকপির বাগানের যত্ন ও পরিচর্যা করবেন

মাটি বেশি শুকনো হয়ে গেলে হালকা সেচ দিতে হবে। গাছের সঠিকভাবে যত্ন নিতে হবে। গাছের গোড়ায় যেন আগাছা না জন্মে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। আগাছা জন্মালে তা নিড়ানী দিয়ে উপড়ে ফেলতে হবে। এবং নিয়মিত গাছের পরিচর্যা করতে হবে।

ফুলকপির খাদ্য গুণাগুণ

ফুলকপি একটি পুষ্টিকর, সুস্বাদু সবজী। এর মধ্যে অনেক ধরণের খাদ্যগুন রয়েছে। 

কখন ফুলকপি  সংগ্রহ করবেন

ফুলকপির চারা লাগানোর পর তিন মাসের মধ্যে আপনি ফলন পাবেন। যখন গাছের ফুল উপযুক্ত বা পরিপক্ক হবে তখনই আপনি ফুলকপি সংগ্রহ করতে পারবেন।

সংকলনে- মোঃ শাহিন মিয়া