ওভারিয়ান ক্যানসার

প্রকাশিত ২১ আগস্ট, ২০১৮ | আপডেট: ১২ আগস্ট, ২০২০

ওভারিয়ান ক্যানসার বা ডিম্বাশয় ক্যানসার সারফেস এপিথেলিয়াল সেল, জার্ম সেল ও সেক্স কর্ড স্ট্রোমাল সেল সহ ডিম্বাশয়ের কোষে শুরু হয়ে থাকে।

ডিম্বাশয় বা ওভারি কি আসুন জেনে নেই

এটি একটিস্ত্রী প্রজনন অঙ্গ যা ডিম্বাণু উৎপাদন করে। সাধারণত প্রতিটি ডিম্বাশয় প্রতি মাসে ডিম্বক্ষরণ করে। এছাড়া এটি ইস্ট্রোজেন ও প্রোজেস্টেরন উভয় প্রকার হরমোন ক্ষরণ করে। বয়ঃসন্ধির সময় সেকেন্ডারি যৌন বৈশিষ্ট্যগুলোর প্রকাশে ও পরিপক্ক অবস্থায় পরিণত প্রজনন অঙ্গের কার্যক্ষমতা চালু রাখতে বিশেষ ভূমিকা রাখে। মহিলাদের একজোড়াডিম্বাশয় থাকে। প্রতিটি ডিম্বাশয় ফেলোপিয়ান টিউবের ফিম্‌ব্রিয়ার সাথে যুক্ত।

ওভারিয়ান টিউমার নিম্নোক্ত টিউমারগুলো অন্তর্ভুক্ত করে

১। জার্ম সেল টিউমার।

২। স্ট্রোমাল টিউমার।

৩। এপিথেলিয়াল টিউমার।

ক্যানসারাস এপিথেলিয়াল টিউমার ওভারিয়ান ক্যানসারের মধ্যে সবচেয়ে কমন ও সবচেয়ে সিরিয়াস।

কি কি লক্ষণ থাকতে পারে

বেশির ভাগ সময় ওভারিয়ান ক্যানসার যে পর্যন্ত নাএর বিকাশের শেষভাগে পৌঁছে তৎক্ষণ উপসর্গ বা লক্ষণাদি থাকে না।

উপসর্গ বা লক্ষণাদির মধ্যে রয়েছে

১। পেট ফুলে যাওয়া বা স্ফীতি।

২। পেটে ব্যথা বা পেলভিক ব্যথা।

৩। খাওয়ার অসুবিধা।

৪। ঘন ঘন মুত্রত্যাগ।

ওভারিয়ান ক্যানসার এর আরো কিছু সম্ভাব্য লক্ষণাদি রয়েছে

১। অস্বাভাবিক মেন্সট্রুয়াল সাইকল।

২। ক্ষুধা না লাগা।

৩। বদহজম।

৪। বমিভাব ও বমি।

৫। গ্যাস বেড়ে যাওয়া।

৬। কোষ্ঠ্যকাঠিন্য।

৭। পিঠ ব্যথা।

৮। ভ্যাজাইনাল ব্লীডিং।

৯। ওজন বেড়ে যাওয়া বা কমে যাওয়া।

ওভারিয়ান ক্যানসার  কি কারণ থাকতে পারে

ওভারিয়ান ক্যানসার মহিলাদের মধ্যে ৫ম সবচেয়ে কমন ক্যানসার। এটি যে কোন ধরণের ফীমেইল রিপ্রোডাক্টিভ ক্যানসারের চেয়ে অধিক মৃত্যু ঘটায়। এর কারণ অজানা। 

ওভারিয়ান ক্যানসার  কিছু ঝুকিপুর্ণ কারণ রয়েছে

১। যে সব মহিলাদের ব্রেস্ট ক্যানসার রয়েছে।

২। ব্রেস্ট ক্যানসার বা ওভারিয়ান ক্যানসার এর পারিবারিক ইতিহাস রয়েছে।

৩। যারা ৫ বছর বা তার অধিক সময় ধরে শুধু estrogen replacement নেয়।

৪। অধিক বয়স্ক মহিলা।

প্রত্যেকেই ওভারিয়ান ক্যানসার এর সবচেয়ে উচ্চ ঝুঁকিতে আছে।

ওভারিয়ান ক্যানসার  ইগজ্যাম ও টেস্টসমুহ

১। Physical exam

২। Pelvic examination

৩। Complete blood count

৪। Pregnancy test (serum HCG)

৫। CT or MRI of the pelvis

৬। Ultrasound of the pelvis

৭। Biopsy

ওভারিয়ান ক্যানসার  চিকিৎসা

ওভারিয়ান ক্যানসার এর সকল স্টেইজ চিকিৎসার জন্য সার্জারী ব্যবহার করা হয়। শুরুর দিকে সার্জারী একমাত্র চিকিৎসা হতে পারে। সার্জারী ওভারী ও ফ্যালোপিয়ান টিউব উভয় অপসারণ সম্পৃক্ত করতে পারে।

সার্জারীর পরে Chemotherapy ব্যবহার করা হয়। Radiation therapy খুব কমই ওভারিয়ান ক্যানসার চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়।

এই লেখাটি শুধুমাত্র তথ্যের জন্য, কিন্তু চিকিৎসা সংক্রান্ত অবস্থা নিরুপন বা চিকিসা গ্রহণের জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়।

মোঃ ফারুক হোসাইন