হার্ট ডিজীজের লক্ষণ, কারণ ও চিকিৎসা

প্রকাশিত ১৯ আগস্ট, ২০১৮ | আপডেট: ১২ আগস্ট, ২০২০

হার্ট ডিজীজ বলতে হৃদসংবহন তন্ত্র, মস্তিষ্ক, বৃক্ক ও প্রান্তিক ধমনী সংক্রান্ত রোগাদি বোঝায়। এখানে হৃৎপিন্ড ধমনী, শিরা ও কৈশিক জালিকা সম্পর্কিত রোগ নিয়ে আলোচনা করা হয়।

প্রতিদিন পৃথিবীতে প্রায় হাজার হাজার লোক কোন না কোন হৃদরোগের শিকার হয়ে মারা যাচ্ছে। এখন সেটা উন্নত দেশের তুলনায় মধ্য ও স্বল্প আয়ের দেশগুলোতে বেশি দেখা যাচ্ছে।

যদিও হার্ট ডিজীজ প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে বেশি হয়ে থাকে, তবেএ অবস্থার পূর্বাবস্থা অ্যাথেরোসক্লোরোসিস অনেক আগে থেকেই শুরু হয়। তাই পুষ্টিকর খাদ্য, লাইফ স্টাইল চেইঞ্জ,শারীরিক পরিশ্রম বা ব্যায়াম, ফ্যাট জাতীয় খাবার ও তামাক জাতীয় খাদ্য পরিহারের মাধ্যমে হার্ট ডিজীজ প্রতিরোধের উপর জোর দেওয়া হয়।

হার্ট ডিজিজের লক্ষণাদি

সচারাচর যেসব লক্ষণ বা উপসর্গ সবচেয়ে বেশি দেখা যায় সেটা হল বুক ব্যথা কিংবা অস্বস্তিবোধ। আরো রয়েছে

১। শ্বাসকষ্ট।

২। পাকস্থলীর উপরের অংশে অসহনীয় ব্যথা।

৩। পিঠে ও বাম বাহুতে ব্যথা।

৪। ঘাড় বা চোয়ালে ব্যথা ইত্যাদি।

হার্ট ডিজিজের কারণসমুহ

হার্ট ডিজীজের পেছনে অসংখ্য কারণ রয়েছে, যেমন লিঙ্গ, বয়স, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, রক্তে উচ্চ লিপিড, পারিবারিক ইতিহাস, স্থূলতা, অতিরিক্ত অ্যালকোহল পান, স্বল্প শারীরিক পরিশ্রম, ধূমপান ইত্যাদি।

বয়স, হার্ট ডিজীজের পেছনে এটিকে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ বিষয় হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এই সময় রক্তবাহিকার গাত্রে গাঠনিক পরিবর্তন হয় ও ধমনীর স্থিতিস্থাপকতা নষ্ট হয়, যার ফলে করোনারি আর্টারীডিজীজ হয়।

লিঙ্গ, সাধারণত নারীর তুলনায় পুরুষদের হার্ট ডিজীজ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। তবে প্রজননের সময়সীমা পেরিয়ে গেলে নারীদেরহার্ট ডিজীজ হওয়ার সম্ভাবনাপুরুষদের মতো হয়ে থাকে।

ডায়াবেটিস, ডায়াবেটিসে আক্রান্ত নারীদের হার্ট ডিজীজ হওয়ার সম্ভাবনা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত পুরুষের চেয়ে বেশি।

পারিবারিক ইতিহাস, সম্প্রতি পাওয়া তথ্যানুসারে পরিবারের নিকট আত্নীয় থেকেও ব্যক্তির এই রোগ হতে পারে।

অ্যালকোহল গ্রহণ ও ধূমপান, এটিকে বর্তমানে একটা উল্লেখ্যযোগ্য কারণ হিসেবে মনে করা হয়।

হার্ট ডিজিজের চিকিৎসা

চিকিৎসার চেয়ে হার্ট ডিজীজ প্রতিরোধের উপর জোর দেওয়ার কথা বেশি বলা হয়ে থাকে। উপরিউক্ত কোন উপসর্গ বা লক্ষণাদি দেখা দিলে যতো দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া উচিত।

এই লেখাটি শুধুমাত্র তথ্যের জন্য, কিন্তু চিকিৎসা সংক্রান্ত অবস্থা নিরুপন বা চিকিসা গ্রহণের জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়।

মোঃ ফারুক হোসাইন