রক্তের হিমোগ্লোবিন এর গুরুত্ব

প্রকাশিত ১ আগস্ট, ২০১৮ | আপডেট: ৬ ডিসেম্বর, ২০২০

হিমোগ্লোবিন একটি অক্সিজেন ধারণকারী আয়রন সমৃদ্ধ মেটালোপ্রোটিন। রক্তের হিমোগ্লোবিন অক্সিজেন ফুসফুস হতে দেহের বিভিন্ন অংশে নিয়ে যায় ও কোষের ব্যবহারের জন্য অবমুক্ত করে। প্রতি গ্রাম হিমোগ্লোবিন ১.৩৬ - ১.৩৭ মিলিলিটার অক্সিজেন ধারণ করতে পারে।এটি অন্যান্য গ্যাস পরিবহনেও অবদান রাখে, যেমন এটি কোষকলা হতে CO2 পরিবহন করে ফুসফুসে নিয়ে যায়।

বহু ভিন্ন ধরণের হিমোগ্লোবিন (Hb) বিদ্যমান রয়েছে। সবচেয়ে কমন হিমোগ্লোবিন হচ্ছে

১। HbA

২। HbA2

৩। HbF

৪। HbS

৫। HbC

৬। Hb H

৭। Hb M

সুস্থ প্রাপ্তবয়স্কদের কেবল গুরুত্বপুর্ণ লেভেলের HbA ও HbA2 রয়েছে। কিছু লোকের সামান্য পরিমাণের HbF ও থাকতে পারে। একটি অজাত শিশুর দেহের মধ্যে এটা প্রধান ধরণের হিমোগ্লোবিন। কিছু রোগসমূহ উচ্চ মাত্রার HbF-র সাথে সম্পৃক্ত (সমগ্র হিমোগ্লোবিনের ২% এর অধিক)। 

HbS সিকল সেল অ্যানিমিয়ার সাথে সম্পৃক্ত একটা অস্বাভাবিক ধরণের হিমোগ্লোবিন। এই অবস্থায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে মাঝেমধ্যে লোহিত রক্ত কণিকা সিকল আকার ধারণ করে। কোষগুলো সহজেই ভেঙ্গে যায় বা ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র রক্তবাহী নালীকে ব্লক করে।

HbC হিমোলাইটিক অ্যানিমিয়ার সাথে সম্পৃক্ত একটা অস্বাভাবিক ধরণের হিমোগ্লোবিন। লক্ষণসমূহ সিকল সেল অ্যানিমিয়ার তুলনায় অতি মৃদু হয়। 

অধিকাংশ মানুষের হিমোগ্লোবিন অণু চারটি বর্তুলাকার প্রোটিন অংশ নিয়ে গঠিত যার প্রতিটি আবার একটি প্রোটিন শিকলের সাথে একটি নন-প্রোটিন হিম অণুর শক্ত বন্ধনে সৃষ্ট।লোহিত রক্তকণিকায় হিমোগ্লোবিন ও অন্যান্য অন্তঃকোষীয় বস্তু থাকলেও শ্বেত রক্তকণিকায় হিমোগ্লোবিন থাকে না।হিমোগ্লোবিন কিছু জটিল ধাপে সংশ্লেষিত হয়। লোহিত কণিকার জীবনের প্রাথমিক পর্যায়ে অস্হিমজ্জায় থাকা অবস্হায় হিমোগ্লোবিন সংশ্লেষণ চলতে থাকে।

অস্বাভাবিক ফলাফল

স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হিমোগ্লোবিন হাইপোক্সিয়ার কারণে হয়ে থাকে। কমন কারণসমুহঃ

১। হৃৎপিন্ডের জন্ম ত্রুটি (কনজেনিটাল হার্ট ডিজীজ)।

২। হার্টের ডান দিকের ফেইলুর।

৩। সিভিয়ার সিওপিডি।

৪। পালমোনারী ফাইব্রোসিস ও সিভিয়ার লাং ডিসঅর্ডার।

৫। বৌন ম্যারো ডিজীজ যার কারণে রক্ত কনিকার সংখ্যা অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যায় (পলিসাইথেমিয়া ভেরা)।

৬। পানিশূন্যতা বা যে পরিমাণ পানি ও ফ্লুইড থাকা দরকার শরীরে তা না থাকা।

লো হিমোগ্লোবিন লেভেলের কারণসমুহ

১। যথাসময়ের পুর্বে ধ্বংসপ্রাপ্ত লোহিত রক্ত কনিকার কারণে অ্যানিমিয়া (হিমোলাইটিক অ্যানিমিয়া)।

২। অন্যান্য ধরণের অ্যানিমিয়া।

৩। ডাইজেস্টিভ ট্র্যাক্ট বা ব্ল্যাডার থেকে রক্তপাত।

৪। ভারী মাত্রায় মাসিক (যোনি থেকে রক্তপাত)।

৫। ক্রোনিক কিডনি ডিজীজ।

৬। বৌন ম্যারো নতুন রক্ত কনিকা তৈরিতে ব্যর্থ হলে।

৭। কিছু রোগ যেমন লিউকেমিয়া, অন্যান্য ক্যানসার, সংক্রমণ।

৮। ড্রাগ টক্সিসিটি, রেডিওথেরাপি।

৯। পুওর নিউট্রিশন।

১০। নিম্ন মাত্রার আয়রন, ফলেট, ভিটামিন বি ১২ বা ভিটামিন বি ৬।

১১। ক্রোনিক ইলনেস যেমন রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস।

গুরুত্বপুর্ন লেভেলের অস্বাভাবিক হিমোগ্লোবিন এর উপস্থিতি নির্দেশ করতে পারে

১। হিমোগ্লোবিন সি ডিজীজ।

২। দুর্লভ হিমোগ্লোবিনোপ্যাথি।

৩। শিকল সেল অ্যানিমিয়া।

৪। থ্যালাসেমিয়া।

এই লেখাটি শুধুমাত্র তথ্যের জন্য, কিন্তু চিকিৎসা সংক্রান্ত অবস্থা নিরুপন বা চিকিসা গ্রহণের জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়

মোঃ ফারুক হোসাইন