আম চাষের ক্ষেত্রে আমের ফসল ও বাগানের সঠিক পরিচর্যা

প্রকাশিত ৯ এপ্রিল, ২০১৮ | আপডেট: ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

আম আমদের দেশের একটি অতি পরিচিত ফল। আমাদের দেশে সর্বত্রই আমের চাষ করা হয়ে থাকে। তবে আমরা অনেকেই আম চাষ করার ক্ষেত্রে সঠিক নিয়মকানুন জানি না। যার ফলে আম চাষ করে বেশি লাভবান হওয়া যায় না। আম চাষ করার ক্ষেত্রে আমের ফসল ও বাগানের সঠিক পরিচর্যা করতে হবে। তাহলে চাহিদা মত ফলন পাওয়া যাবে। আসুন জেনে নেই আম বাগান পরিচর্যার পদ্ধতিসমুহ-

ক) আমের চারা রোপণ করার পরে দেখতে হবে চারা যেন বাতাসে হেলে না পড়ে।

খ) আমের বাগানে যেন সঠিক পরিমাণে বায়ু চলাচল করে সেদিকে খেয়াল করে নির্দিষ্ট দূরত্বে আমের চারা রোপণ করতে হবে।  

গ) বাগান তৈরির পূর্বে এবং প্রতি ৩ বছর অন্তর অন্তর মাটির গুণাগুণ পরীক্ষা করতে হবে।

ঘ) বাগানের সকল কার্যক্রম ও তথ্য সংগ্রহ করতে হবে। বাগানের বিভিন্ন জাতের চারা কলমের রক্ষণাবেক্ষণ করতে হবে।

বাগানের ডাল ছাটাইকরণ ও আবর্জনা অপসারণ

ক) আম গাছের বৃদ্ধি অনুসারে আম গাছের ডালপালা ছাঁটাই করতে হবে। তবে খেয়াল রাখবেন গাছ ছাঁটাই করার সময় গাছের ভারসাম্যের যেন ঠিক থাকে।

খ) ফল আসার সময় গাছের বেশি ছাঁটাই করা উচিৎ নয়। এতে ফলের উৎপাদনে মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে।

গ) গ্রীষ্মকালে আম গাছের ফল সংগ্রহ করার পরে অবশ্যই গাছ ছাটাই করতে হবে। এছাড়াও ফল ধরার পরে গাছের অনাকাঙ্ক্ষিত মুকুল, অতিরিক্ত ছায়াদানকারী পাতা, রুগ্ন ও বিকৃত আকৃতির ফল ছাঁটাই করতে হবে।

গাছের ফল পাতলাকরণ

ক) আমের সঠিক ও গুণগত মানের ফলন পাওয়ার জন্য আমের ফলন পাতলা করে দিতে হয়। 

খ) মুকুল আসা, ফল পাকা ও মুকুলের সুপ্ততা ভাঙ্গার জন্য রাসায়নিক পদার্থ নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবহার করতে হবে।

পানির গুণাগুণ ও সেচ

পানির গুণাগুন

ক) আমগাছে সাধারণত বছরে দুই বার সেচ দেওয়ার প্রয়োজন হয়। 

খ) প্রথমবার পরিপূর্ণ মুকুল অবস্থায় এবং দ্বিতীয়বার আম যখন মটর দানার আকার ধারণ করে। 

গ) আম গাছে সেচ দেয়ার পূর্বে গাছের প্রয়োজনীয়তা জানতে হবে। তাঁর পরে উপযুক্ত পরিমাণে সেচ দিতে হবে।

ঘ) মুকুল আসার ২ – ৩ মাস পূর্ব হতে আমগাছে পানি সেচ দেয়া বন্ধ রাখতে হবে। এইসময় আমগাছে পানি সেচ দিলে গাছে মুকুল আসার পরিমাণ কমে যায়।

ঙ) আম গাছের বয়স যখন ছয়মাস হবে তখন গাছে ২ – ৬ দিন অন্তর অন্তর পানি সেচ দিতে হবে। আবার গাছের বয়স যখন ৬ – ১৮ মাস হবে তখন ৪ – ১২ দিন অন্তর অন্তর পানি সেচ দিতে হবে।

চ) ১.৫ – ৫ বছর বয়সের গাছে ১ – ৩ সপ্তাহ অন্তর অন্তর সেচ প্রদান করতে হবে।

ছ) আম গাছে যখন মুকুল আসে এবং ফলের আকার যখন মটর দানার মত হয় তখন অর্থাৎ মোট দুই বার মোডিফাইড ব্যাসিন পদ্ধতিতে সেচ প্রদান করতে হবে।

জ) আম বাগানে সেচের পানির অম্লতা ২ dsm-2  এর কম থাকতে হবে।

সংকলনে- মোঃ শাহিন মিয়া