জেনে নিন এজহার সম্পর্কে বিস্তারিত

প্রকাশিত ২৯ জুন, ২০১৮ | আপডেট: ২১ নভেম্বর, ২০১৯

 

অনেক সময় বিভিন্ন অপরাধ ঘটে থাকে নিজের চোখের সামনে। সেই অপরাধের প্রতিকার পাওয়ার জন্য আমরা সাধারনত নিজ এলাকার থানাতে যাই ঘটনাটা জানাতে। এই ঘটনা বিস্তারিত থানাতে জানানো হল এজাহার বা এফআইআর (ফার্স্ট ইনফরমেশন রিপোর্ট)। এজহার হল মামলার প্রথম ধাপ। কোন বিষয়ে মামলা করতে হলে প্রথমে এই এজহারের মাধ্যমে হয়।

এজাহার কাকে করতে হবে 

১। ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি নিজে।

২। তাঁর পরিবারের কেউ।

৩। অন্য কোনো ব্যক্তি যিনি ঘটনা ঘটতে দেখেছেন কিংবা ঘটনা সম্পর্কে অবগত আছেন।

আবেদন কোথায় করতে হবে

আপনার চোখের সামনে কোন অপরাধ সংঘটিত হয়েছে। এখন আপনি চাচ্ছেন তা থানাতে জানাবেন। তখন আপনি আপনার নিজ এলাকার থানাতে বিষয়টি জানাবেন এবং সে থানার ডিউটিরত কর্মকর্তার কাছে আবেদন করবেন।

এজহারের পদ্ধতি কি 

এজহার লিখিত ভাবে উপস্থাপন করাটাই ভালো। যদিও এজহার লিখিত এবং মৌখিক দুইভাবেই করা যায়। এজহার যদি মৌখিক ভাবে উপস্থাপন করা হয়, তাহলে ডিউটিরত কর্মকর্তার নিকট বিস্তারিত ঘটনা বলতে হবে। থানার কর্মরত ব্যক্তি বিস্তারিত লিখিত ভাবে নিবেন এবং এজহারকারীকে তা পড়ে শুনাবেন। এরপর এজহারকারীর স্বাক্ষর নিবেন এবং যে ডিউটিরত কর্মকর্তা এজহারটা লিখেছেন তার সিল এবং স্বাক্ষর দিবেন।

আর যদি এজহার লিখিত ভাবে উপস্থাপন করা হয়। তাহলে ঘটনার বিস্তারিত, ঘটনার স্থান, সময়, কিভাবে ঘটনাটি ঘটেছে, কেন ঘটেছে, অপরাধী কে, অপধারী পরিচিত হলে তার নাম, ঠিকানা সকল বিষয় বিস্তারিত লিখিত ভাবে ডিউটিরত কর্মকর্তার নিকট নিজের স্বাক্ষর সহ জমা দিতে হবে।

এজহার পাওয়ার পর পুলিশ কি করবে 

পুলিশের কাছে এজহার করার পর, পুলিশ সত্যতা যাচাই করবে। আর এমন যদি হয় তাৎক্ষনিক কোন পদক্ষেপ নিলে অপরাধীকে ধরা যাবে তাহলে পুলিশ ম্যাজিস্ট্রেটের অনুমতি ছাড়াই তদন্ত শুরু করবে। আর যদি এজহার করা ঘটনাটি আমলযোগ্য না হয় সেক্ষেত্রে পুলিশ সকল প্রতিবেদন সহ বিচারক ম্যাজিস্ট্রেটের নিকট জমা দিবেন। জমা দেওয়ার পর ম্যাজিস্ট্রেটের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে তদন্ত শুরু করবে।

লেখিকা- মুমতাহিনা প্রমি, আইনে অধ্যায়নরত ছাত্রী, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।