হিন্দু উত্তরাধিকার আইন

প্রকাশিত ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ | আপডেট: ২১ নভেম্বর, ২০১৯

প্রত্যেক ধর্মের উওরাধিকার আইন আছে। তেমনি হিন্দু আইনের উওরাধিকার আইন আছে। বাংলাদেশ, ভারত এবং পাকিস্তানে হিন্দুদের মধ্যে দু'ধরনের উত্তরাধিকার পদ্ধতি চালু রয়েছে। 

১। দায়ভাগ পদ্ধতি 

২। মিতাক্ষরা পদ্ধতি। 

দায়ভাগ পদ্ধতিতে পিন্ডদানের অধিকারী ব্যক্তি মৃত ব্যক্তির উওরাধিকার পাবে। দায়ভাগ পদ্ধতি বাংলাদেশ এবং ভারতের পশ্চিম্বঙ্গে প্রচলিত।

যেসব উওরাধিকার প্রথম শ্রেনীর তারা প্রথমে পাবে। মৃত ব্যক্তি যদি পুরুষ হয় তাহলে তার ছেলে, মেয়ে, স্ত্রী, মা, মৃত ছেলের ছেলে মেয়ে থাকলে তারা পাবে আগে। যদি প্রথম শ্রেনীর কোন উওরাধিকার না থাকে তাহলে পর্যায়ক্রমে দ্বিতীয়, তৃতীয় উওরাধিকাররা পাবে।

প্রথমে মৃত ব্যক্তির সকল সম্পত্তি তার ছেলে, মেয়ে, স্ত্রী এবং মায়ের মাঝে ভাগ করে দেওয়া হবে। যদি ছেলে বা মেয়ে মৃত হয় তাহলে তাদের উওরাধিকারের মধ্যে ভাগ করা হবে।

প্রথম শ্রেনীর কোন উওরাধিকার না থাকলে দ্বিতীয় শ্রেনীর উওরাধিকাররা সম্পত্তির ভাগ পাবে। দ্বিতীয় শ্রেনীর উওরাধিকারের প্রথমে আছে বাবা। তিনি যদি না থাকেন তবে অন্যরা সম্পত্তির ভাগ পাবেন।

মৃত ব্যক্তি যদি নারী হয় তাহলে তার সকল সম্পত্তি তার ছেলে মেয়ে এবং স্বামী পাবে। যদি তারা না থাকে তাহলে স্বামীর পরিবার বর্গ পাবে তারাও না থাকলে মৃত ব্যক্তির মা বাবা পাবে।

হিন্দু ধর্মে এই বিষয়ে নারীকে সকল অধিকার দেওয়া হয়েছে। একজন নারী তার স্বামীর কাছ হতে পাওয়া সম্পত্তির ভাগ উওরাধিকারদের দিবেন। মৃত নারীর ছেলে মেয়ে এবং স্বামী সমান ভাবে সম্পত্তির ভাগ পাবেন।

লেখিকা- মুমতাহিনা প্রমি, আইনে অধ্যায়নরত ছাত্রী, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।